Home / জাতীয় / ‘৩০ শতাংশ শিশুর অনলাইন শিক্ষার সুযোগ রয়েছে’

‘৩০ শতাংশ শিশুর অনলাইন শিক্ষার সুযোগ রয়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : ‘ডিজিটাল প্লাটফর্ম ও ইন্টারনেট সংযোগের ঘাটতি থাকায় উন্নয়নশীল দেশগুলোর অধিকাংশ শিশু দূর-শিক্ষণ নেয়া একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এসব দেশে মাত্র ৩০ শতাংশ শিশুর এ সুযোগ রয়েছে। তাই, এ মুহূর্তে অনলাইন ও দূর-শিক্ষণে প্রবেশাধিকারের বিষয়টি হওয়া উচিত বৈশ্বিকভাবে সর্বোচ্চ প্রাধিকারভুক্ত বিষয়।’

ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের বার্ষিক অধিবেশনের ভার্চুয়াল উদ্বোধন করে এ কথা বলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

আজ মঙ্গলবার (৩০ জুন) জাতিসংঘ স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, সোমবার (২৯ জুন) এ ভার্চুয়াল অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এটি ছিল ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের প্রথম ভার্চুয়াল আনুষ্ঠানিক অধিবেশন।

উদ্বোধনী বক্তব্যে নিবেদিত ও সাহসী প্রচেষ্টার মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর সংকট মোকাবিলা করে বিশ্বশিশুদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সারাবিশ্বে দায়িত্বরত ইউনিসেফের কর্মীবাহিনীকেও ধন্যবাদ জানান তিনি।

বৈশ্বিক এ মহামারি মোকাবিলা ও উত্তরণে ইউনিসেফের নেয়া কর্মসূচি যাতে সদস্য দেশগুলোর সরকার গৃহীত কর্মসূচিগুলোকে সমর্থন যোগাতে পারে এবং তা যেন সরকারি পদক্ষেপসমূহের পরিপূরক হয় সে আহবান জানান ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।

বৈশ্বিক এ মহামারিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বিশেষ করে নিম্ন আয়ের, স্বল্পোন্নত ও আফ্রিকার দেশসমূহ যে ভয়াবহ বাস্তবতা মোকাবিলা করছে তা তুলে ধরেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।

তিনি বলেন, এমনকি সাধারণ হাত ধোয়ার মতো বিষয়টিও অনেক শিশুর জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ও স্বাস্থ্য অবকাঠামোতে প্রবেশের সুযোগ থেকে এ শিশুরা বঞ্চিত। এছাড়া বৈশ্বিক মহামারির প্রেক্ষাপটে ইউনিসেফের টিকাদান কর্মসূচি স্থগিত বা হ্রাস হওয়ার ফলে কলেরা, পোলিও এবং হামের মতো প্রতিরোধযোগ্য রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটার ব্যাপক ঝুঁকি রয়েছে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা।

কোভিড-১৯ মহামারিকে জাতিসংঘ ব্যবস্থাপনার জন্য একটি ‘লিটমাস টেস্ট’ হিসেবে উল্লেখ করেন ইউনিসেফ নির্বাহী বোর্ডের সভাপতি। কোভিড-১৯ মোকাবিলা ও উত্তরণে ইউনিসেফের নেওয়া কর্মসূচি যাতে জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থাগুলো গৃহীত কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয় সে বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

অধিবেশনে আরও বক্তব্য রাখেন ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক মিস হেনরিয়েটা এইচ ফোর। তিনি ইউনিসেফের কর্মসূচিসমূহ বিস্তারতিভাবে তুলে ধরেন এবং ইউনিসেফ যেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে তাও উল্লেখ করেন। এরপর জাতিসংঘে নিযুক্ত সদস্য দেশসমূহের স্থায়ী প্রতিনিধিসহ অন্যান্য প্রতিনিধিরা স্ব স্ব দেশের পক্ষে বক্তব্য রাখেন।

ঢাকা প্রতিদিন.কম/এআর

Loading...

Check Also

হলি আর্টিজান হামলা মামলা: করোনা শেষেই আপিল শুনানি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : রাজধানীর হলি আর্টিজানে রেস্টুরেন্টে হামলা-মামলায় আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *