Home / ফোকাস / বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে দেশ পরিচালিত হচ্ছে বলেই সুদিন দেখছি

বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে দেশ পরিচালিত হচ্ছে বলেই সুদিন দেখছি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। কিন্তু স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়তে তিনি মাত্র সাড়ে ৩ বছর সময় পেয়েছিলেন। এ অল্প সময়ে তিনি যত কাজ করে গেছেন এবং কাজের যে ধারাটা রচনা করে গিয়েছিলেন তা বাংলাদেশকে ৩৫ বছর এগিয়ে নিয়েছে। বর্তমানে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা জাতির পিতার দেখানো পথেই দেশ পরিচালনা করছেন। আর এজন্যই আমরা সেই সুদিন আবার দেখতে পাচ্ছি।

আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার রাতে আয়োজিত ‘গণমানুষের পাশে আওয়ামী লীগের ৭১ বছর’ শীর্ষক অনলাইন আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে অনলাইনে যুক্ত হন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন ও লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক এবং জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সুভাষ সিংহ রায়। অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, একটি কণ্ঠের বজ নিনাদ সাড়ে সাত কোটি কণ্ঠে প্রতিধ্বনিত হয়ে প্রতিরোধের দাবানল ছড়িয়ে বিজয় ছিনিয়ে আনে বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল বলেই ১৯৭১ সালে বিশ্ব মানচিত্রে যুক্ত হয়েছে আরেকটি দেশ। সেই দেশের নাম স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেশের সাধারণ মানুষ, দলের নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের শুভেচ্ছা জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক।

ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন বলেন, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন শুরু হয় বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে। বঙ্গবন্ধু সারা জীবন লড়াই সংগ্রাম করেছেন। তিনি তার জীবনের ১৪টি বছর জেলে কাটিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু যখন ছয় দফা দিলেন তখন সারা বাংলার মানুষ একে মুক্তির সনদ হিসেবে গ্রহণ করে। সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর দল আওয়ামী লীগ ১৬৭টি আসন পেয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। যখন বঙ্গবন্ধুকে সরকার গঠন করতে দিল না তখন স্বাধীনতার ডাক দেয়া ছাড়া বঙ্গবন্ধুর আর কোনো উপায় ছিল না। ফারুক খান বলেন, বঙ্গবন্ধু যদিও সাড়ে ৩ বছর সময় পেয়েছিলেন কিন্তু তিনি যত কাজ করে গেছেন এবং কাজের যে ধারাটা রচনা করে গিয়েছিলেন তা বাংলাদেশকে ৩৫ বছর এগিয়ে নিয়েছে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা জাতির পিতার দেখানো নিয়মেই দেশ পরিচালনা করছেন। আর এজন্যই আমরা সেই সুদিন আবার দেখতে পাচ্ছি।

আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বাংলাদেশকে একটি অনগ্রসর জাতিতে পরিণত করতে বিএনপি-জামায়াত জোট যখন সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগের অনুমতি দিল না তখন আমরা অনেক পিছিয়ে পড়লাম। পরে যখন মোবাইল সেবা এল বিএনপি আমলে তখন একটা মোবাইল সংযোগ নিতে খরচ পড়ত দেড় লাখ টাকা যা আমাদের মতো সাধারণ মানুষের পক্ষে এত ব্যয়বহুল সংযোগ নেয়া সম্ভব ছিল না। পরে আওয়ামী লীগ ’৯৬ সালে যখন ক্ষমতায় এল তখন দল-মত নির্বিশেষে সবাইকে মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবসার সুযোগ দেয়া হল। এটাই হচ্ছে মানুষকে সেবা করার সদিচ্ছা।

অজয় দাশগুপ্ত বলেন, আওয়ামী লীগের জন্মই হয়েছিল এ দেশের মানুষকে স্বাধীনতা এনে দেয়ার জন্য। ১৯৭১ সালে যখন লাখ লাখ তরুণ মুক্তিযুদ্ধ করছে তখন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যে সরকার তারা ভবিষৎ বাংলাদেশ কিভাবে পরিচালিত হবে তা নিয়ে ‘প্ল্যানিং সেল’ গঠন করে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ টিকবে না বলা হলেও সে দেশকে ৩ বছরে পুনর্গঠন করেন বঙ্গবন্ধু।

ঢাকা প্রতিদিন.কম/এআর

Loading...

Check Also

করোনামুক্ত না হওয়া পর্যন্ত জনগণের পাশে থাকবেন আওয়ামী লীগ কর্মীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : করোনা সংকটে জনগণের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে আওয়ামী লীগ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *