Home / জাতীয় / সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ

সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনা ভাইরাস আতঙ্কে সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। বাস, ট্রেন, নৌযান ও ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার থেকে লোকাল ও মেইল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। আন্তঃনগর বন্ধ হবে ২৬ মার্চ থেকে। শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি চলাচল আজ দুপুর থেকে বন্ধ হবে। আর আগামী ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ হচ্ছে বাস চলাচল।

বাস

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় আগামী ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) সকালে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ভিডিও বার্তায় গণপরিবহন বন্ধের কথা জানান।

বার্তায় তিনি বলেন, দেশের মানুষ, যাত্রীসাধারণ, গাড়ির মালিক শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্ট সবার জ্ঞাতার্থে জানানো যাচ্ছে আগামী ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত সারাদেশে গণপরিবহন লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জরুরি সেবা, জ্বালানি, পচনশীল পণ্য পরিবহনে নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। পণ্যবাহী যানবাহনে কোনও যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।

বাস-ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রমেশ কান্তি বলেন, ‘আমরা এখনও সরকারের লিখিত কোনও সিদ্ধান্ত পাইনি। যদি সরকার আমাদের এমন কোনও সিদ্ধান্ত দেয় তাহলে অবশ্যই আমরা পরিবহন বন্ধ করে দেবো।’

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির দফতর সম্পাদক সামদানী খন্দকার বলেন, ‘আমরা এখনও সরকারের কোনও সিদ্ধান্ত পাইনি। সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছি। সরকার যদি পরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত দেয়, অবশ্যই পরিবহন বন্ধ করে দেবো।’
বাস, ট্রেন ও লঞ্চ

ট্রেন

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দেশের সব রুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য যাত্রীবাহী রেল চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দুপুরে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন এ ঘোষণা দেন। আজ সন্ধ্যা থেকেই এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, যেসব রেল বিভিন্ন বেজ স্টেশন থেকে ঢাকায় এসেছে, তারা আবার ফিরে যাওয়ার পর এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। তবে তেল, খাদ্যসহ জরুরি পণ্য পরিবহনের জন্য সীমিত আকারে ট্রেন চলবে।

এর আগে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে রেলওয়ের সব লোকাল ও মেইল ট্রেন বন্ধ ঘোষণা করা হয়। মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) থেকে এসব ট্রেন চলাচল বন্ধ করা হয়। আর আগামী বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল।

নৌযান

দেশের সব রুটে আজ মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) থেকে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নৌ-মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর খান।

বিআইডব্লিউটিএ জানায়, করোনার বিস্তার রোধে সারাদেশে আজ থেকে যাত্রীবাহী নৌ চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে পণ্যবাহী নৌ চলাচল করবে। মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বিকাল থেকে দেশের নদীবন্দরে চলাচলকারী সব যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মন্ত্রণালয় থেকে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত অব্যাহত থাকবে।

ফেরি

দেশের অন্যতম প্রধান দুই ফেরিঘাটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। দুপুরের পর থেকে মুন্সীগঞ্জে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি রুটে এবং মানিকগঞ্জ থেকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগের অন্যতম রুট শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি রুটে সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ থাকবে। আজ মঙ্গলবার দুপুর ২টা থেকে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের উপমহাব্যবস্থাপক (এজিএম) শফিকুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি সেক্টরের ডিজিএম (ভারপ্রাপ্ত) জিল্লুর রহমান জানান, ‘পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট মঙ্গলবার বিকাল নাগাদ লকডাউন হয়ে যাবে। তবে এখনও পাটুরিয়া ঘাটে  দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাস রয়েছে। এগুলো পার হলেই লকডাউন।’

Loading...

Check Also

শনিবার করোনার নমুনা টেস্ট কিট দেবে গণস্বাস্থ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের করোনা ভাইরাস শনাক্তের কিট তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। সবকিছু ঠিকঠাক ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *