Home / তথ্য প্রযুক্তি / প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট যাবে ড্রোনের মাধ্যমে?

প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট যাবে ড্রোনের মাধ্যমে?

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : একটা সময় ছিল যখন মোবাইল ফোনে ভালো নেটওয়ার্ক পেতে বাসা থেকে যেতে হতো দূরে কোথাও। এরপর মোটামুটি দেশের সকল অঞ্চলেই মোবাইল নেটওয়ার্ক কাভারেজ পাওয়া যায়। মোবাইলের নেটওয়ার্ক খোঁজা এখন বলা যায় অতীত। বরং এখন কোথাও কোথাও ইন্টারনেটের সংযোগ পাওয়া হয়তো কষ্টকর হতে পারে।

আমাদের দেশের প্রযুক্তি সুবিধার ভালো উন্নতি হলেও আফ্রিকার অনেক দেশেই এখনও সকল জায়গায় মোবাইলেরই কাভারেজ নেই। তাই এই সমস্যা সমাধানে সম্প্রতি একটি নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আলোচনা চলছে। আর সেটা হলো উড়ন্ত মোবাইল টাওয়ার বা ড্রোন টাওয়ার।

রাহুল তিওয়ারি নামের ২২ বছরের এক যুবক ২০১৭ সালে একটি ধারণা নিয়ে এসেছিল। তখন সে ধারণাটি ছিল ডাইনিং টেবিলের সাইজের একটি ড্রোনকে ওয়াচ টাওয়ার হিসেবে ব্যবহার করা, উদ্দেশ্য চোরা শিকারিদের ধরা।

কিন্তু তার এই ধারণা যখন বাণিজ্যিকভাবে আলোচনা করা হলো তখন একে আরো এক ধাপ এগিয়ে মোবাইল টাওয়ার বা ইন্টারনেট টাওয়ার হিসেবে ব্যবহারের জন্য ভাবা হলো। রাহুল তিওয়ারি আমেরিকার পারডু ইউনিভার্সিটির ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্র। তার একটি স্টার্টআপ কোম্পানি আছে, নাম ‘টেলি লিফট’।

এই টেলি লিফট তৈরি করতে চাচ্ছে ফ্লাইং সেলফোন টাওয়ার। যার সাহায্যে আফ্রিকার অনুন্নত দেশ যেমন কেনিয়া, নাইজার, সেনেগালের মতো দেশের দুর্গম এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক কিংবা ওয়াই-ফাই এর সাহায্যে ইন্টারনেট দেয়া হবে। গুগল এবং ফেসবুক দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বের ইন্টারনেট সুবিধা থেকে বঞ্চিত জনগণকে ইন্টারনেট সুবিধা দিতে চাচ্ছে। রাহুল তিওয়ারের এই উদ্যোগ হয়তো তাদেরকে আকৃষ্ট করবে।

রাহুল তিওয়ার বলেন, ‘আফ্রিকার মূল শহরের বাইরে মোবাইলের কাভারেজ দিন দিন কমছে। ফলে তাদেরকে এর আওতায় আনতে মোবাইল অপারেটর প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য এটা ভালো সুযোগ। তারা এর জন্য খরচ করতে আগ্রহীই হবে এবং এটা হবে সবার জন্যই ভালো।’

জিএসএমএ’র মতে, বিশ্বের প্রায় ৪ বিলিয়ন মানুষ ইন্টারনেট সেবার বাইরে আছে। রাহুলের ভাষায়, বড়সড় এই ড্রোন ২০০ মিটার উচ্চতায় একটানা প্রায় একমাস উড়ে থাকতে পারবে। একেকটি ড্রোন ২০ থেকে ৩০ মাইলের ভেতর কয়েকশ মানুষকে ইন্টারনেট সেবা দিতে সক্ষম। এটা ৪জি ইন্টারনেট সেবা দিতে পারবে। তবে এখনও এটা বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার শুরু হয়নি। তবে অচিরেই হয়তো উড়ন্ত টাওয়ারের মাধ্যমে দুর্গম এলাকায় ইন্টারনেট কিংবা মোবাইল নেটওয়ার্ক সরবরাহে এই ড্রোন দেখা যেতে পারে।

ঢাকা প্রতিদিন.কম/এআর

Loading...

Check Also

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ছে ঈদ পর্যন্ত!

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : করোনাভাইরাসের কারণে গত ১৮ মার্চ থেকে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *