Home / খেলাধুলা / মার্সেল শরীরগঠন প্রতিযোগিতায় ফিটনেস প্লানেট চ্যাম্পিয়ন

মার্সেল শরীরগঠন প্রতিযোগিতায় ফিটনেস প্লানেট চ্যাম্পিয়ন

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : ‘পঞ্চম মার্সেল রেফ্রিজারেটর কাপ শরীরগঠন প্রতিযোগিতা-২০১৯’ এ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মিরপুরের ফিটনেস প্লানেট। রানার্স-আপ হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। ছয়টি ওজন শ্রেণির প্রথম থেকে ষষ্ঠ স্থান পর্যন্ত চারটি পদক জয় করে ফিটনেস প্লানেট। আর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীও চারটি পদক জয় করে।

আজ রোববার এনএসসি টাওয়ারে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতার চূড়ান্তপর্বের খেলায় ৬০ কেজি ওজন শ্রেণিতে প্রথম হয়েছেন শাকিল বডিবিল্ডিং ক্লাবের মো. আল আমীন মিশন। দ্বিতীয় হয়েছেন নেক্সাস জিমের নাজিম। আর তৃতীয় হয়েছেন গ্যালাক্সি জিমের সোহান হোসেন। ৬৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে প্রথম হয়েছেন মুন্সিগঞ্জের ওল্ড জিম অ্যান্ড ফিটনেস সেন্টারের অন্তু হোসেন ঢালী। দ্বিতীয় হয়েছেন ফিটনেস প্লানেট জিমের রিমন হোসেন। আর তৃতীয় হয়েছেন শ্রেডেড আর্মির মো. রাসেল।

৭০ কেজি ওজন শ্রেণিতে প্রথম হয়েছেন ফিটনেস প্লানেট জিমের এবাদত হোসেন। দ্বিতীয় হয়েছেন মুন্সিগঞ্জের ওল্ড জিম অ্যান্ড ফিটনেস সেন্টারের মিতু চোকদার। তৃতীয় হয়েছেন নেক্সাস জিমের শুভ রাজ সাহা। ৭৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে প্রথম হয়েছেন রুসলানস স্টুডিও’র ডিপ্লাস চিসিম। দ্বিতীয় হয়েছেন বাংলাদেশ আর্মির মো. নাজমুল ইসলাম। আর তৃতীয় হয়েছেন ফিটনেস প্লানেট জিমের রাশেদ আহমেদ রবিন।

৮০ কেজি ওজন শ্রেণিতে প্রথম হয়েছেন উত্তরার হ্যামার জিমের রাজেশ চক্রবর্তী। দ্বিতীয় হয়েছেন স্পার্টান ফিটনেস জিমের রিয়াজ উদ্দিন। আর তৃতীয় হয়েছেন ফিটনেস প্লানেটের এইচএম তানজীর রুবয়াইয়েত শুভ। ৮০+ কেজি ওজন শ্রেণিতে দ্য জিমনেসিয়ামের মো. শেখ জামাল। দ্বিতীয় হয়েছেন রায়হান ফিটনেস ক্লাবের রায়হানুর রহমান। আর তৃতীয় হয়েছেন নিউ স্টার জিমের হারুনুর রশিদ পিন্টু।

প্রতিটি ওজন শ্রেণির প্রথম থেকে তৃতীয় স্থান অর্জকারীদের ট্রফি, মেডেল ও সনদপত্র দেয়া হয়। পাশাপাশি ১ লাখ ৮০ হাজার টাকার প্রাইজমানি দেয়া হয় তাদের। চতুর্থ থেকে ষষ্ঠ স্থান অর্জকারীদের ট্রফি ও সনদপত্র দেয়া হয়।

ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন। এ সময় বাংলাদেশ শরীরগঠন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মিস্টার বাংলাদেশ মো. নজরুল ইসলামসহ ফেডারেশনের অন্যান্য কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা প্রতিদিন.কম/এআর

Loading...

Check Also

রোজ ১২ কিমি পথ পাড়ি দিয়ে মেয়েদের স্কুলে নিয়ে যান নিরক্ষর বাবা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : দিনমজুরের কাজ করলেও মেয়েদের পড়াশোনার ব্যাপারে সজাগ তিনি। তাই রোজ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *