Home / জেলার খবর / উদ্যমী বীর

উদ্যমী বীর

খোরশেদ আলম, আশুলিয়া থেকে
উদ্যমী বীর মতিউর রহমান মতিন। বর্তমান সময়ে অন্যায়ের প্রতিবাদী কণ্ঠ, তৃণমূল নেতাকর্মীদের কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ, সৃৃজনশীল নেতা তিনি। আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশন খুব শিগগিরই অনুষ্ঠিত হবে। এ কাউন্সিল অধিবেশনে মতিউর রহমান মতিনকে আবারো ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে দেখতে চান তৃণমূল নেতারা। দেশকে যোগ্য নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করে তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলেন, এই অগ্রযাত্রার একজন অন্যতম কর্মী বাংলাদেশের সবচেয়ে ঘনবসতি ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মতিনকে আবারো ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত করা হোক।
ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে আরও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শ বুকে ধারণ করে দলের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে মতিউর রহমান মতিন। প্রকৃত মুজিব মতিউর রহমান মতিনকে আবারো ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দেখতে চায় ধামসোনাবাসি। শুধু নিজস্ব দল বা রাজনৈতিক পরিচয়ের মধ্যে আবদ্ধ নন তিনি, পরোপকারী, দরিদ্র মানুষকে সহায়তাসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের জন্য আশুলিয়ার সাধারণ শ্রমিকদের কাছেও বেশ জনপ্রিয় এই আওয়ামী লীগ নেতা। তাই দল ও জনসাধারণের কল্যাণে তাকে আবারো ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক করা দরকার বলে মনে করেন শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নে বসবাসরত ও কর্মরত সাধারণ শ্রমিকরা।
শ্রমিকবান্ধব এই নেতা পারিবারিক ঐতিহ্যের সূত্র ধরে রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। সাভার কলেজ ছাত্রলীগ দিয়ে রাজনীতি শুরু করেন তিনি। পরে তিনি দীর্ঘ দিন ধামসোনা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি সাভার উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি, একই সময় তিনি ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেন, এরপরে ২০০২ সালে তিন প্রথমবার ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ২০১৪ সালে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ লাভ করে বর্তমানেও তিনি ওই পদেই দায়িত্ব পালন করছেন। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে উপজেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধাভাজন সিনিয়র প্রতিটি নেতার সাথে সু-সম্পর্ক রেখেই চলছে তার পথচলা।
অন্যদিকে ধামসোনা ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ডের সাবেক এই সদস্য আনুবিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরপর দুইবার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। শুধু তাই নয় তিনি পাবনার টেক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে ১০ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন, এর পাশাপাশি তিনি বলিভদ্র বাজার ব্যবসায়ী সমিতির ও হাশেম প্লাজা সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি শমশের প্লাজার সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এদিকে তিনি ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে এলাকায় সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসাসহ সব ধরনের অপরাধ নির্মূল করতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে মতিউর রহমান মতিন বলেন, আমি দল থেকে কিছু পাওয়ার আশায় রাজনীতি করি না। আমি বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক আদর্শকে ভালোবেসে রাজনীতিতে যোগ দিয়েছে। আমি দলকে যেমন ভালোবাসি তেমনি তৃণমূল নেতাকর্মীরাও আমাকে ভালোবাসে। তাই নেতাকর্মী ও জনগণের আশা পূরণে যদি দল আমাকে পদ দেয়, তাহলে ধামসোনা ইউনিয়নবাসি আমাকে হাসিমুখে গ্রহণ করবে বলে আমি আশাবাদী। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যতদিন চান আমি ততদিন রাজনীতি করে যাবো। তার হাতকে শক্তিশালী করতে ধামসোনসহ শিল্পাঞ্চল আশুলিয়াকে একটি স্বচ্ছ সুন্দরে রূপান্তরিত করার পক্ষে কাজ করব।

Loading...

Check Also

অগ্নি সন্ত্রাসীদের কেউ ক্ষমতায় দেখতে চায় না : শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : একাত্তরের ঘাতক এবং অগ্নি সন্ত্রাসীদের নতুন করে আর কেউ ক্ষমতায় ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *