Home / খেলাধুলা / টাইগারদের প্রথম শিরোপা জয়

টাইগারদের প্রথম শিরোপা জয়

ক্রীড়া ডেস্ক

কি অদ্ভুত মিল! যে দিনে মিলেছিল প্রথম ওয়ানডে জয়ের দেখা, ২১ বছর পর ঠিক সেই ১৭ মে’তেই প্রথম শিরোপা জয় টাইগারদের। একদম সহজ হিসেব। ইতিহাস জানাচ্ছে ১৯৮৬ সালের ৩১ মার্চ শ্রীলঙ্কার মোরাতোয়ায় পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডে খেলা শুরু করেছিল বাংলাদেশ। আর তারও প্রায় একযুগ পর ১৯৯৮ সালের ১৭ মে ভারতের হায়দরাবাদের লাল বাহাদুর শাস্ত্রী স্টেডিয়ামে কেনিয়ার বিপক্ষে ৬ উইকেটের প্রথম জয়টিও ছিল এই ১৭ মে তারিখে।
একই দিনে প্রথম ওয়ানডে জয় আর তার ২১ বছর পর কোন ওয়ানডে টুর্নামেন্ট বা তিন জাতি আসরের ট্রফি বিজয়! রীতিমত কাকতালীয়, অতিকাকতালীয়। আরও একটি সাযুজ্য কিন্তু আছে। তা হলো, প্রধান চালিকাশক্তি, বিপদে, প্রয়োজনে ও দরকারে যাদের কার্যকর পারফরম্যান্স টিম বাংলাদেশের প্রাণশক্তি, আশা ভরসা- সেই পঞ্চপান্ডব কিন্তু প্রথম ট্রফি জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখেননি বা রাখতে পারেনি। তাদের বদলে প্রথম ট্রফি জয়ের নায়ক, মানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ফাইনালে টাইগারদের জয়ের রুপকার ও নায়ক- দুজন তরুণ; সৌম্য সরকার আর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

কাল প্রথম ট্রফি জয়ের মিশনেও ঠিক তেমনিভাবে তামিম, সৌম্য, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, মিঠুন ও সাব্বিরকে পিছনে ফেলে নায়ক মোসাদ্দেক। এতকাল জানা ছিল ‘পঞ্চপান্ডব’ই সব। গত পাঁচ বছর বিশেষ করে ২০১৫ সালের বিশ্বকাপের আগে থেকে এই আয়ারল্যান্ডের তিন জাতি আসরের ফাইনালের আগে পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রায় সব ওয়ানডে জয়ের পিছনে মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক আর মাহমুদউল্লাহর অবদান সর্বোচ্চ। প্রায় ৯৫ ভাগ ক্ষেত্রে তারাই সাফল্যের রূপকার, স্থপতি এবং জয়ের নায়ক। প্রতিপক্ষর সাথে লড়াই করে ব্যাট ও বল হাতে সাফল্যের ভিত রচনা এবং সাফল্যের বন্দরে পৌঁছে দেয়া- সব কাজেই পঞ্চপান্ডব অগ্রণী ভূমিকায়।

শুক্রবার ১৭ মে শুক্রবার ডাবলিনের মালহিডের ‘দ্যা ভিলেজ’ মাঠে তার ব্যত্যয় ঘটেছে। এই ম্যাচে টাইগারদের জয়ের দুই মূল রূপকার ও প্রধান নায়ক পঞ্চপান্ডবের কেউ নন। দুই তরুণ তুর্কি সৌম্য সরকার আর মোসাদ্দেক হোসেন।

এমন নয়, আর কারো কোনো অবদান নেই। শুধু বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য আর লেট মিডলঅর্ডার মোসাদ্দেকই দল জিতিয়েছেন। আর কেউ কোন ভূমিকা রাখেননি, তা বলা যাবে না। ২৪ ওভারে ২১০ রানের কঠিন লক্ষ্যে পৌছাতে পঞ্চপান্ডবের দুজন তামিম আর মুশফিকও অবদান রেখেছেন।

লক্ষটা সহজ ছিল না মোটেই। ওভারপ্রতি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮.৭৫ রান। সবার আগে প্রয়োজন ছিল উড়ন্ত সূচনার। সৌম্যর ঝড়ো উইলোবাজির সাথে তামিম (১৩ বলে ১৮) রানের সাপোর্ট দিলে প্রথম ৫.৩ ওভারে উদ্বোধনী জুটিতে সেই শুরু (৫৯ রান) পায় বাংলাদেশ।

আর শেষ দিকে সৌম্য, মুশফিক, সাব্বির আর মিঠুন আউট হবার পর একদিক আগলে রাখাটাও ছিল জরুরী। অভিজ্ঞ আর পঞ্চপান্ডবের অন্যতম সদস্য মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (২১ বলে ১৯) সে দরকারি কাজটিও করেছেন। তবে শুরুর ঝড় বইয়ে ক্যারিবীয় বোলিংকে লন্ডভন্ড করার কাজটি সেড়েছেন সৌম্য। তার ১৬০.৯৭ স্ট্রাইকরেটে ৪১ বলে ৬৬ রানের ঝড়ো ইনিংসটি তাই বাংলাদেশকে আশা জাগিয়েছে। জয়ের পথে অনেকদূর এগিয়েও দিয়েছে।

Loading...

Check Also

হাফসেঞ্চুরির পর এবার সাকিবের পাঁচ উইকেট

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : আফগানিস্তানকে যেন একাই ধসিয়ে দিলেন সাকিব আল হাসান্। যখনই প্রয়োজন ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *