Home / আন্তর্জাতিক / একুশ শতকেও সবার আগে চাঁদে নভোচারী পাঠাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

একুশ শতকেও সবার আগে চাঁদে নভোচারী পাঠাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম ২৯ মার্চ : বিশ শতকে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে চাঁদে পৌঁছাতে পেরেছিল যুক্তরাষ্ট্র। একইভাবে একুশ শতকেও সবার আগে চাঁদে নভোচারী পাঠানোর চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে দেশটি। আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, একুশ শতকে চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর ক্ষেত্রেও আমরাই হবো প্রথম জাতি। আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা আবারো চাঁদে নভোচারী পাঠাবে।

এ বছরের জানুয়ারি মাসের শুরুর দিকে চাঁদের উল্টো পিঠ দক্ষিণ গোলার্ধের এইটকেন বেসিনে মনুষ্যবিহীন রোবটযান অবতরণ করায় চীন। ঐ ঘটনার তিন মাসের মধ্যে চাঁদের দক্ষিণ গোলার্ধে সবার আগে নভোচারী পাঠানোর ঘোষণা দিল যুক্তরাষ্ট্র। চীনের চালানো রোবোটিক মিশনের প্রসঙ্গ টেনে মাইক পেন্স বলেন, আমরা এখন আবার একটা মহাকাশ-কেন্দ্রিক প্রতিযোগিতার মধ্যে রয়েছি, যেমনটি ছিলাম ১৯৬০-এর দশকে।

অ্যালাবামার হান্টসভিলের ন্যাশনাল স্পেস কাউন্সিলের সম্মেলনে দেয়া এক ঘোষণায় মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, আগামী ৫ বছরের মধ্যে চাঁদে আবারো মার্কিন নভোচারী পাঠানোর বিষয়টি বর্তমান প্রশাসন এবং যুক্তরাষ্ট্রের নীতির মধ্যেই রয়েছে।

১৯৬৯ সালে চাঁদের বুকে অবতরণ করা প্রথম মানব নীল আর্মস্ট্রং বলেছিলেন, এটা মানুষের জন্য ক্ষুদ্র পদক্ষেপ কিন্তু মানবজাতির জন্য বিশাল এক যাত্রা। নীল আর্মস্ট্রংয়ের সেই কথার পুনরাবৃত্তি করে পেন্স বলেন, পরবর্তী বিশাল পদক্ষেপের এখন এটাই সময়।

চাঁদে পুনরায় মানুষ পাঠানোর ব্যাপারে আগে থেকেই পরিকল্পনা ছিল নাসার। পেন্সের ঘোষণা এই সময়সীমাকে আরো বেগবান করবে। মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের ঘোষণার পর ইউএস স্পেস এজেন্সির পরিচালক জিম ব্রাইডেনস্টাইন টুইট করে বলেছেন, চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করা হলো। এখন কাজ শুরুর পালা। আগে থেকেই নাসার পরিকল্পনা ছিল ২০২৪ সালের মধ্যে চাঁদের কক্ষপথের কাছে যাওয়ার জন্য বানানো হবে গেটওয়ে নামে একটি স্পেস স্টেশন। এরপর ২০২৪ সাল নাগাদ চাঁদে নভোচারী পাঠানো হবে। -বিবিসি

ঢাকা প্রতিদিন.কম/এআর

Loading...

Check Also

আমাদের খুব বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছে: মাহমুদউল্লাহ

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : ভারত সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *