Home / খেলাধুলা / রংপুর রাইডার্সের টানা দ্বিতীয় জয়

রংপুর রাইডার্সের টানা দ্বিতীয় জয়

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম ৯ জানুয়ারি : কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে হেসেখেলেই জয় পেল মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বাধীন রংপুর রাইডার্স। দলের জয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখেন অধিনায়ক মাশরাফি। বিপিএল সেরা বোলিং করে দলকে জয় উপহার দেন তিনি। তার বোলিংয়ের সামনে ৬৩ রানে অলআউট কুমিল্লা।

বিপিএলের চলতি আসরে তিন ম্যাচের মধ্যে টানা দুটিতে জয় পেল রংপুর। উদ্বোধনী খেলায় চিটাগাং ভাইকিংসের বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরে যাওয়া রংপুর, নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ৮ রানে জয় পায়। মঙ্গলবার কুমিল্লার বিপক্ষে রংপুর পেল ৯ উইকেটের বড় জয়।

এই জয়ের ফলে তিন ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় পজিশনে উঠে গেল রংপুর। মাত্র ২ ম্যাচ খেলে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বাধীন ঢাকা ডায়নামাইটস।

মঙ্গলবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৬৩ রানে অলআউট কুমিল্লা। ৬৪ রানের মামুলি টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৪৮ বল হাতে রেখে ৯ উইকেটের বড় জয় পায় রংপুর।

দলের জয়ে ব্যাট হাতে অপরাজিত ৩৬ রান করেন ওপেনার মেহেদী মারুফ। এছাড়া ২০ রান করেন আগের ম্যাচে ৭৬ রান করা রাইলি রুশো। বিপিএলের চলতি আসরে প্রথম ম্যাচে খেলতে নেমে মাত্র ১ রানে ফেরেন রংপুরের ক্যারিবীয় হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল।

মাশরাফির রেকর্ডের ম্যাচে ৬৩ রানে অলআউট কুমিল্লা

রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে চরম বিপর্যয়ে পড়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার গতির সামনে দাঁড়াতেই পারেননি কুমিল্লার তারকা ব্যাটসম্যানরা।

মঙ্গলবার মিরপুর শেরেবাংলায় অনুষ্ঠিত ম্যাচে সময়ের ব্যবধানে উইকেট পড়ে যাওয়ায় শেষ পর্যন্ত ৬৩ রানে অলআউট কুমিল্লা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১৮ বলে ২৫ রান করেন কুমিল্লার পাকিস্তানি অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি।

রংপুর রাইডার্সের হয়ে ৪ ওভারের মাত্র ১১ রানের খরচায় ৪ উইকেট নিয়ে ইতিহাস গড়েন মাশরাফি। বিপিএলের ছয় আসরের ইতিহাস সেরা বোলিং করেন মাশরাফি।

বিপিএলের চলতি ষষ্ঠ আসরের উদ্বোধনী দিনে গত শনিবার ৪ ওভারে ১৪ রানে ৪ উইকেট শিকার করেন চিটাগাং ভাইকিংসের রবার্ট ফ্রাইলিংক।

ইনিংসের শুরুতেই কুমিল্লার ব্যাটিং লাইনআপ ভেঙে দেন মাশরাফি। ১৮ রানে কুমিল্লার টপ অর্ডার তিন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, ইভিন লুইস এবং ইমরুল কায়েসকে সাজঘরে ফেরান মাশরাফি।

এরপর পাকিস্তানের অলরাউন্ডার শোয়েব মালিককে ফেরান শফিউল ইসলাম। চারে ব্যাটিংয়ে নামা অস্ট্রেলিয়ান সাবেক অধিনায়ক স্টিভ স্মিথকে সাজঘরে পাঠান মাশরাফি।

১৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে কার্যত ছিটকে যায় কুমিল্লা। এরপর সাতে ব্যাটিংয়ে নামা পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি দলকে উত্তরণের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি এনামুল হক বিজয়, সাইফউদ্দিনরা ১৮ বলে ২৫ রান করে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফেরেন আফ্রিদি।

এরপর মেহেদী হাসান এবং আবু হায়দার রনিরা প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে না পারায় ১৬.২ ওভারে ৬৩ রানে অলআউট হয় কুমিল্লা।

রংপুরের হয়ে মাশরাফি ৪ ওভারে ১১ রানে নেন ৪ উইকেট। এছাড়া ৩.২ ওভারে ৩ উইকেট নেন নাজমুল ইসলাম অপু। ২ ওভারে ৮ রানে ২ উইকেট নেন শফিউল ইসলাম।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: তামিম ইকবাল, ইভিন লুইস, ইমরুল কায়েস, স্টিভ স্মিথ, শোয়েব মালিক, এনামুল হক বিজয়, শহীদ আফ্রিদি, সাইফউদ্দিন, আবু হায়দার রনি, মেহেদী হাসান ও মোহাম্মদ শহীদ।

রংপুর রাইডার্স: রাইলি রুশো, ক্রিস গেইল, মেহেদী মারুফ, মোহাম্মদ মিঠুন, রবি বোপারা, ফরহাদ রেজা, বেনি হাওয়েল, মাশরাফি বিন মুর্তজা, নাজমুল ইসলাম অপু, শফিউল ইসলাম ও সোহাগ গাজী।

ঢাকা প্রতিদিন.কম/ আর

Loading...

Check Also

আমাদের খুব বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছে: মাহমুদউল্লাহ

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : ভারত সফরে টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *