Breaking News
Home / খেলাধুলা / হেটমায়ারকে দেখলেই সিরিয়াস হয়ে যান মিরাজ!

হেটমায়ারকে দেখলেই সিরিয়াস হয়ে যান মিরাজ!

ক্রীড়া প্রতিবেদক: কি আশ্চর্য এক প্রেম। এমন বিপরিতমুখি প্রেমও হয়! বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলবেন, আর উইকেটটা মেহেদী হাসান মিরাজকে দেবেন না শিমরন হেটমায়ার, তা কি করে হয়? সম্ভবই না! মিরাজ-হেটমায়ারের গল্পটা ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই বাংলাদেশ সফরে যেন অমর হয়ে থাকবে। মিরাজের মুখোমুখি হওয়া মানেই তাকে উইকেটটা দিয়ে আসা হেটমায়ারের- এভাবেই চলছে এখনও পর্যন্ত।
বাংলাদেশ সফরে দুই টেস্ট এবং তিন ওয়ানডে মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত ৭ বার ব্যাট করতে নামতে হয়েছে শিমরন হেটমায়ারকে। এর মধ্যে তিনি ৬ বার (চার বার টেস্টে, দুবার ওয়ানডেতে) মুখোমুখি হয়েছেন মিরাজের এবং প্রতিবারই বাংলাদেশের এই অফ স্পিনারকে উইকেট দিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছেন। মাঝে, শুধু ঢাকায় দ্বিতীয় ওয়ানডেতে মিরাজ বোলিংয়ে আসার আগেই হেটমায়ারের উইকেট নিয়ে নেন রুবেল হোসেন।

মিরাজ-হেটমায়ারের এই আশ্চর্য মেলবন্ধন নিয়ে ভক্তরা ইতিমধ্যে একটি ট্রল ভিডিও’ও বানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দিয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, ‘হেটমায়ারকে দেখা মাত্রই মিরাজ বলছেন, একটু খেয়ে নিই? আক্ষরিক অর্থেই এই কথার প্রতিধ্বনি হচ্ছে মাঠে।
কি এমন হয়েছে যে মাঠে নামলেই হেটমায়ারের উইকেট নিতে হবে মিরাজকে। যদিও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বর্তমান দলটিতে হেটমায়ারকেই মনে করা হয়, সবচেয়ে প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান। কিন্তু মিরাজের সামনে আসলেই কেন যেন চুপসে যান তিনি।

এর রহস্য কি? জানতে চাওয়া হয়েছিল খোদ মেহেদী হাসান মিরাজের কাছেই। গত শুক্রবার সিলেটে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে এসে মিরাজ এ প্রশ্নের জবাবে বলেন, ও (হেটমায়ার) যখন ব্যাটিংয়ে আসে তখন হয়তো আমি বেশি সিরিয়াস থাকি। ও আমার বলে যেহেতু আউট হচ্ছে, আমি ক্যাজুয়াল নিই না। আমি আরও বেশি সিরিয়াস থাকি। ভাবি যে, ও হয়তো আমার ওপর চড়াও হতে পারে। তাই ও যখন ব্যাটিংয়ে নামে আমার ফোকাস তখনও আরও বেড়ে যায়। হয়তো ও এখানে একটু পিছিয়ে থাকে বা আমি একটু এগিয়ে থাকি। এই কারণে হয়তো আমাকে খেলতে ওর একটু সমস্যা হয়।

ঢাকা প্রতিদিন ডটকম/১৫ ডিসেম্বর/এসকে

Loading...

Check Also

ধোনির সঙ্গে তুলনা করা বাড়াবাড়ি: আকবর

ক্রীড়া ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম : ক্রিকেট বিশ্বে ঠাণ্ডা মাথার ব্যাটসম্যান হিসেবে সুখ্যাতি রয়েছে ভারতের কিংবদন্তি ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *