Home / জাতীয় / ‘সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না’

‘সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না’

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। যারাই ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করবে তাদের বিরুদ্ধেই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আজ শনিবার সকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, সড়কে বিশৃঙ্খলার জন্য অপরিকল্পিত নগরায়ন ও ট্রাফিক আইন না মানার সংস্কৃতিই দায়ী। সমাজের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের অনেকেই ট্রাফিক আইন মানতে চান না। তারা উল্টোপথে গাড়ি ব্যবহার করে। যদি দায়িত্বশীলরাই আইন না মানে তাহলে সাধারণ নাগরিকদের আইন মানাতে চাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দু’শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় কোমলমতি ছাত্ররা রাস্তায় নেমে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে যে আন্দোলন করেছিল, আজ ছাত্ররাও এখন আর আইন মানছে না। তিনি বলেন, গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থীর নিহতের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা রাজধানীর বিভিন্ন রাস্তায় অবস্থান কর্মসূচী পালন করে এবং ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রন করে। কিন্তু সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে আন্দোলনকারী সেই শিক্ষার্থীদের মাঝেই আইন না মানার প্রবণতা দেখা দিয়েছে। যা কারো কাম্য নয়।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, রাজধানীতে চুক্তিভিত্তিক বাস চালক নিয়োগ বন্ধ করা জরুরি। আগামী এক মাসের মধ্যে পরিবহন মালিকরা এই প্রক্রিয়ায় বাসচালক নিয়োগ দেবে না বলেও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এতে সড়কে চালকদের মধ্যে প্রতিযোগিতা কমে আসবে। তিনি বলেন, সড়কে গাড়ি চালানোর সময় চালকরা যাত্রী তোলা নিয়ে যে প্রতিযোগিতা করেন সেটা বন্ধ করতে হবে। চুক্তিভিত্তিক চালক নিয়োগের সিস্টেম বন্ধ করতে হবে। এ বিষয়ে মালিক এবং শ্রমিকদের সাথে কথা বলেছি। তারা আমাদের বলেছেন, আগামী এক মাসের মধ্যে এ চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ বন্ধ করা হবে।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ঢাকা মহানগর পুলিশ গত ৫ আগষ্ট থেকে ৭ দিন ট্রাফিক সপ্তাহ পালন করে। পরে সেপ্টেম্বর মাসজুড়ে আবারো ট্রাফিক কর্মসূচি পালন করে ডিএমপি। মাসব্যপী এ কর্মসূচী চলাকালে ট্রাফিক আইন অমান্য করায় এক মাসে প্রায় ৭ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়াও অনেক গাড়িকে ডাম্পিংয়ে পাঠানোসহ রেকারিং করা হয়। তিনি বলেন, ট্রাফিক সচেতনা কার্যক্রম একটি চলমান প্রক্রিয়া। দুর্গাপূজার পর আবারো ট্রাফিক সচেতনতা কার্যক্রম শুরু করা হবে এবং তা চলমান থাকবে বলে জানান ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

এদিকে ট্রাফিক সচেতনতার লক্ষ্যে আজ দুপুরে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের সামনে থেকে শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রায় বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী ছাড়াও ডিএমপির কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন। এর আগে কৃষিবিদ মিলনায়তনে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষেদের নিয়ে আলোচনা সভার আয়োজন করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ। এ সময় শিক্ষাবিদ, চলচ্চিত্র অভিনেতা, নাট্যজন, ক্রিকেট তারকারা উপস্থিত ছিলেন।

ঢাকা প্রতিদিন ডটকম/১৩ অক্টোবর/এসকে

Loading...

Check Also

বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক : বঙ্গোপসাগরে একটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে। পৌষের শুরুতেই এই নিম্নচাপের কারণে দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *