Home / জাতীয় / বন্দুকযুদ্ধে মাদক সম্রাট পঁচিশ নাদিমসহ নিহত ২

বন্দুকযুদ্ধে মাদক সম্রাট পঁচিশ নাদিমসহ নিহত ২

এসএম দেলোয়ার হোসেন: ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে র‌্যাবের সাথে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের কুখ্যাত মাদক সম্রাট নাদিম হোসেন ওরফে পঁচিশ নাদিম এবং ইব্রাহীম ওরফে পাইলট বাবু নিহত হয়েছে। এসময় র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে। ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ তাদের লাশ মর্গে পাঠিয়েছে।

পুলিশ জানায়, সোমবার দিবাগত গভীর রাতে মিরপুরের বেড়িবাঁধে ও নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে র‌্যাবের সাথে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে শীর্ষ দু’জন মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। খবর পেয়ে আজ সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দু’জনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবীর ঢাকা প্রতিদিনকে জানান, চলমান মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে সোমবার মধ্যরাত থেকে মিরপুর বেড়িবাঁধে চেকপোস্ট বসিয়ে সন্দেহভাজন যানবাহন ও যাত্রীদের থামিয়ে তল্লাশি করছিলো র‌্যাব-৪ এর একটি দল। অভিযান চলাকালে সোমবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে সন্দেহভাজন একটি মোটরসাইকেলের দুই আরোহীকে থামানোর সংকেত দেয় কর্তব্যরত র‌্যাব সদস্যরা। তখন আরোহীরা তা অমান্য করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তখন র‌্যাব সদস্যদের ধাওয়ার একপর্যায়ে ওই মোটরসাইকেল থেকে র‌্যাব সদস্যদের লক্ষ্য করে বোমা ছুড়ে মারে। এসময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালালে একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে রাস্তার উপর পড়ে যায়। আরেকজন মোটরসাইকেলে দ্রুত পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি করে ৬ হাজার পিস ইয়াবা ও বিস্ফোরিত বোমার ধ্বংসাবশেষ জব্দ করা হয়। তখন গুলিবিদ্ধ এক যুবককে পড়ে থাকতে দেখে র‌্যাব সদস্যরা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে আজ ভোর ৪টায় ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা নিহতের পকেট তল্লাশি করে ছবিযুক্ত একটি আইডি কার্ড দেখে তার নাম ইব্রাহিম বলে জানতে পারে। মিরপুরের ওই এলাকায় নিহত ইব্রাহীম পাইলট বাবু নামেই সকলের কাছে পরিচিত। সে ছিলো মিরপুর এলাকার কুখ্যাত মাদক স¤্রাট। তার বিরুদ্ধে মিরপুর, শাহআলীসহ আশপাশের কয়েকটি থানায় অন্তত ১৫টি মাদকের মামলা রয়েছে। এর আগে ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত নজুর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিলো নিহত পাইলট বাবুর। তারা দু’জনে মিলে মিরপুর এলাকার মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতো।

এদিকে অপর ঘটনায় র‌্যাব সদর দফতরের (মিডিয়া) সিনিয়র সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান জানায়, সোমবার দিবাগত রাত ৩টায় র‌্যাব-১ এর একটি দল গোপন সংবাদে জানতে পারে, হত্যাসহ ডজন খনেক মামলার আসামি মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের কুখ্যাত মাদক সম্রাট নাদিম হোসেন ওরফে পঁচিশ নাদিমসহ তার সহযোগিরা মাদকের একটি চালান আনতে রূপগঞ্জের রাজউকের পূর্বাচল উপশহরের ৯ নম্বর সেক্টরের ১১ নম্বর ব্রিজের সামনে অবস্থান করছে। এমন সংবাদে র‌্যাব-১ এর একটি দল তাদের অনুসরণ করে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। তখন অস্ত্রধারী মাদক ব্যবসায়ীরা র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। এতে র‌্যাবের এসআই আবু হানিফ ও সিপাহী সাজিরুল ইসলাম আহত হন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পরপরই র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছুড়ে। উভয়পক্ষের বন্দুকযুদ্ধের একপর্যায়ে মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের শীর্ষ মাদক কারবারি নাদিম হোসেন ওরফে পাঁচিশ নাদিম নিহত হয়। তখণ র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র-গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে। পরে বিষয়টি রূপগঞ্জ থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়। খবর পেয়ে আজ সকালে রূপগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল মাদক স¤্রাট নাদিম ওরফে পঁচিশের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

র‌্যাব-পুলিশ জানিয়েছে, নাদিম হোসেন ওরফে পঁচিশ নাদিম বিভিন্ন সামাজিক কাজকর্মের আড়ালে দীর্ঘ যুগ ধরে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলো। রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পে তার জন্ম। ছোটবেলায় তার মা-বাবা মারা যাওয়ার পর ক্যাম্প এলাকার একটি হোটেলে কাজ করতেন তিনি। বেতন ছিলো ২৫ টাকা। ওই সময় থেকেই গাঁজা বিক্রি শুরু করেন। বিক্রি করতেন ২৫ টাকায়। এ কারণে তার প্রকৃত নাম নাদিম হোসেনের সাথে এলাকাবাসী তাকে পঁচিশ’ নামেই ডাকা শুরু করে। সেই থেকেই সে নাদিম ওরফে পঁচিশ নামেই ব্যাপক পরিচিতি পায়। এরপর তাকে আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি। গোটা জেনেভা ক্যাম্পজুড়েই ছিলো তার একক আধিপত্য। মাদকের ভয়াবহ আখড়া হিসেবে জেনেভা ক্যাম্পকে তৈরি করে পঁচিশ।

পুলিশ-র‌্যাব জানায়, নাদিম হোসেন পঁচিশের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় হত্যাসহ ১২টি মামলা রয়েছে। গ্রেফতারও হয়েছেন বহুবার। কিন্তু কারাগার থেকে বেরিয়ে আবারো পুরনো কারবারে ফিরে যেতেন। তিনি একাধিকবার আত্মসমর্পণ করে মাদকের কারবার ছেড়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা কার্যক্রম ছিলো না।

উল্লেখ্য, মেহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের মাদক ব্যবসা নিয়ে দৈনিক ঢাকা প্রতিদিন পত্রিকায় কয়েকটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সংবাদ প্রকাশের পরই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা জেনেভা ক্যাম্পের মাদক নির্মূলে মাদকবিরোধী অভিযান চালায়। যা অদ্যবধি অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা।

ঢাকা প্রতিদিন ডটকম/১০ জুলাই/এসকে

Loading...

Check Also

বেঙ্গলি বিউটি নিয়ে যা বললেন টয়া

বিনোদন ডেস্ক, ঢাকা প্রতিদিন.কম ১৭ জুলাই : আগামী ২০ জুলাই বড় পর্দায় অভিষেক হচ্ছে টয়ার। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *