Home / অপরাধ / শাহবাগ ওভারব্রিজে ছুরিকাঘাতে হকার নিহত, ঘাতক গ্রেফতার

শাহবাগ ওভারব্রিজে ছুরিকাঘাতে হকার নিহত, ঘাতক গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর রমনায় একটি ফুটওভার ব্রিজে ভবঘুরে এক ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে নুরুন্নবী মজুমদার (২৩) নামে এক হকার নিহত হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ তার লাশ ঢাকা মেডিকেলের মর্গে পাঠিয়েছে। ঘটনার পরপরই কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্ট ধাওয়া করে রক্তমাখা ধারালো চাকুসহ খুনি খায়রুল আনামকে গ্রেফতার করে থানায় সোপর্দ করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় রমনা থানাধীন ব্যস্ততম শাহবাগের বারডেম হাসপাতালের সামনের ফুটওভার ব্রিজে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় ফুটপাতের ক্ষুদ্র হকার কসমেটিকস ব্যবসায়ী নুরুন্নবী মজুমদার ব্রিজের উপরে বসে পণ্যের পসরা সাজাচ্ছিলেন। এসময় এক যুবক এসে তার দোকানে সাজানো একটি চাকু হাতে নিয়ে দেখছিলো। তখন বিষয়টি সন্দেহ ও অস্বাভাবিক মনে হওয়ায় নুরুন্নবী মজুমদার তাকে চাকু ধরতে নিষেধ করেন। এসময় কিছু বুঝে উঠার আগেই ওই যুবক ধারালো চাকু দিয়ে নুরুন্নবী মজুমদারের গলায় ঢুকিয়ে দিয়ে দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করে। তার ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে যায়। কিন্তু ডাক-চিৎকার শুনে রাস্তায় কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্ট এসএম শিহাব মামুন ধাওয়া করে নুরুন্নবী মজুমদারের খুনি ভবঘুরে ছিনতাইকারী খয়রুল আনামকে গ্রেফতার করে। এর আগে খবর পেয়ে তার ভাই শাহপরানসহ অন্যান্য হকাররা গুরুতর আহত নুরুন্নবীকে দ্রুত উদ্ধার করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাৎক্ষণিক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেলের মর্গে পাঠায়। তার মৃত্যুর খবরে বিক্ষুব্ধ জনতা ট্রাফিক সার্জেন্টের হাতে আটক খুনি খায়রুলকে ধরে গণপিটুনি দিয়েছে।

নিহতের ভাই শাহপরান ঢাকা প্রতিদিনকে জানান, তারা দুই ভাই মিলে শাহবাগের ফুটওভার ব্রিজে ফেরি করে কসমেটিকস বিক্রি করতেন। আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে হঠাৎ ছিনতাইকারী খায়রুল তার ভাইয়ের গলায় পেছন থেকে ধারালো চাকু ঢুকিয়ে দেয়। দ্রুত উদ্ধার করে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নেয়া হলে সেখানে নুরুন্নবীর মৃত্যু হয়।

শাহপরান আরো বলেন, চকবাজারের একটি মেসে তারা দুই ভাই ভাড়া থাকতেন। কয়েকদিন আগেই তার ভাই বিয়ে করেছেন। তবে কি কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে তা তিনি জানাতে না পারলেও তিনি লোকমুখে জানতে পেরেছেন, তার ভাই নুরুন্নবী দোকান খোলার সময় খায়রুল একটি চাকু নিয়ে এপিঠ-ওপিঠ দেখিছিলো। ঘটনাটি সন্দেহ হওয়ায় তার ভাই ওই যুবককে চাকুটি রেখে দিতে অনুরোধ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই যুবক তার ভাইকে চাকু মেরে হত্যা করেছে।

ডিএমপি’র ট্রাফিক সার্জেন্ট এসএম শিহাব মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা প্রতিদিনকে জানান, নুরুন্নবী ফুটওভার ব্রিজের ওপরে বসে গৃহস্থলীর কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন সামগ্রী বিক্রি করতেন। সকালে দোকান খোলার পর এক তরুণ তার দোকান থেকে একটি চাকু হাতে নিয়ে দেখতে থাকেন। তাকে দেখে অস্বাভাবিক মনে হচ্ছিলো। তখন নুরন্নবী জিনিসপত্র ধরতে নিষেধ করলে ওই তরুণ তার গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে। এতে নুরুন্নবী নিহত হন। এরপর পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে ধাওয়া করে তিনি তাকে আটক করে প্রথমে শাহবাগ পরে রমনা থানায় সোপর্দ করেন।

গতকাল এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রমনা থানায় যোগাযোগ করা হলে এসআই দীপঙ্কর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ঢাকা প্রতিদিনকে জানান, নুরুন্নবীকে ছুরিকাঘাতে হত্যাকারী পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে সার্জেন্ট শিহাব মামুন দৌঁড়ে খায়রুলকে হাতেনাতে আটক করেন। এসময় বিক্ষুব্ধ জনতা তাকে গণপিটুনি দেয়। পরে সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলেও জানান রমনা থানা পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

ঢাকা প্রতিদিন ডটকম/১৫ মে/এসকে

Loading...

Check Also

সড়ক দুর্ঘটনা : পাঁচ মাসে নিহত ১৯৯৫

রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাতনামা মহিলা (৬৫) ও আব্দুুস সালাম (৭০) নামে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *